শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ,
শেখ হাসিনার বাংলাদেশ।

ত্বক বা মুখ ফর্সা করার টিপস

                                                   Ruposhi

সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ। মানুষ অনেকেই ফর্সা  হয়ে জন্মায় আবার অনেকে কালো হয়ে জন্মায়। এটা বিধাতার সৃষ্টি।এটাতে আমাদের কারো হাত নেই। তবে ফর্সা বা কালো যেটাই হোন না কেন রোদ, ধুলিবালি ও প্রাকৃতিক আবহাওয়ার সংস্পর্শে এসে আপনার ত্বক মলিন হয়ে যায়। তাই সঠিক ভাবে ত্বকের পরিচর্যা না করলে আপনি কালো বা চেহারা বিকৃতি হয়ে যেতে পারে।চেহার ফর্সাকে ধরে রাখতে এবং কালো থেকে ফর্সা হওয়ার জন্য কিছু ঘরোয়া টিপস মেনে চললে আপনি দ্রূত ফর্সা হয়ে উঠতে পারেন। আবার গায়ের রং উজ্জল হলেও অনেক সময় সেই উজ্জলতা মলিন হয়ে যায়। এই মলিনতা থেকে রক্ষা পেতে বা ফর্সা হতে আপনি বিনা পয়সায় ঘরোয়া বিভিন্ন উপাদান দিয়ে অতি সহজে এক সপ্তাহে নিজেকে ফর্সা করে তুলতে পারেন।

টিপস সমূহ :

  •  টমেটো ও লেবুর পেস্ট : টমেটোতে প্রচুর পরিমান লাইকোপেন নামক একটি উপাদান রয়েছে। যা সব ধরনের ত্বকের দাগ মিশিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি মৃত কোষের স্তর সরিয়ে দেয়। ফলে ত্বক অতি দ্রুত উজ্জল ও ফর্সা হয়ে উঠে। ১টি বা ২ টি টমেটোর সঙ্গে ২ চা চামুচ লেবুর রস মিশিয়ে ব্লেন্ডারে পেস্ট বানিয়ে নিন।তারপর সেই পেস্ট আলত করে ভালোভাবে মুখে লাগান। ২০-২৫ মিনিট অপেক্ষা করার পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ভাল ভাবে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এভাবে নিয়মিত করতে থাকলে অতি দ্রুত ফর্সা হয়ে উঠবেন। উল্লেখ্য টমেটোতে যাদের এ্যালার্জি হয় তারা লাগাবেন না।
  • অ্যালভেরা জেল : অ্যালভেরা জেল ত্বককে ফর্সা করার পাশাপাশি নানাবিধ স্কিন ডিজিজের প্রকপের হাত থেকে রক্ষা করতে গুরুত্ব পূর্ন  ভুমিকা পালন করে। পরিমান মত অ্যালভেরা জেল নিয়ে সমপরিমান বাদাম গুড়া মিশিয়ে মিশ্রন বানিয়ে ফেলুন। তারপর সেই মিশ্রন ভালভাবে মুখে লাগান। ২০-৩০ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন অতি দ্রুত ফর্সা হয়ে উঠছেন।
  • দই, মধু ও লেবুর পেস্ট : পরিমান মত দই নিয়ে অল্প করে মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। তারপর সেই পেস্ট মুখে ম্যাসেজ করুন। ২০ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। মধু ত্বককে ভেতর থেকে সুন্দর করে তোলে। আর লেবুর রস এবং দইয়ের মিশ্রনে ভিটামিন সি ত্বককে উজ্জল ও ফর্সা করে তুলতে গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা পালন করে থাকে।
  • লেবু ও চিনি পেস্ট :  একটি লেবু থেকে রস সংগ্রহ করে তাতে ১ চা চামুচ  চিনি মিশিয়ে নিন। তারপর মিশ্রনটি ততক্ষন পর্যন্ত মুখে ঘষতে থাকুন যতক্ষন না চিনিটা ত্বকের সঙ্গে একেবারে মিশে যায়। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ফর্সা ত্বক পেতে এই ঘরোয়া পদ্ধতিটি বেশ কাজে দিবে।
  • কলা ও দুধ পেস্ট : কলা ও দুধ ত্বকের জন্য খুব উপকারী। একটি কলা ছিলিয়ে নিয়ে পরিমান মত দুধ মিশিয়ে মুখে ভালো ভাবে লাগান। তবে খেয়াল রাখবেন পেস্টটা যেন একেবারে মিহি হয়ে যায়। তবেই কিন্তু ভাল কাজ দেবে।
  • চন্দন গুড়া ও দুধ পেস্ট : ঝকঝকে ত্বকের জন্য চন্দন গুড়ার অবদান অনস্বীকার্য । চন্দন গুড়ার সাথে দুধ ‍মিশিয়ে প্রত্যেক দিন আলত করে  ‍মুখে মেসেজ করুন। অল্প কিছু দিনের মধ্যে আপনার মুখ উজ্জল, সুন্দর ও ফর্সা দেখাবে।এ ছাড়া  দিনে দুইবার ডাবের পানি দিয়ে মুখ ধয়ে নিবেন তাতেও দ্রুত মুখ ফর্মা হয়ে উঠবে এবং ‍বিভিন্ন দাগ দ্রুত মিশিয়ে যাবে।
  • মসুর ডাল ও দুধের পেস্ট : যারা সাধারনত সিন্পল কিন্তু এক্সফলিয়েশন পছন্দ করেন, তাদের জন্য মসুর ডাল এক দারুন উপাদান। মুখের মৃতকোষ সরিয়ে মুখের ত্বক উজ্জল ও স্মুথ করতে মসুরের ডালের জুড়ি মেলা ভার।সেই সঙ্গে দুধের ল্যাকটিক এসিড ত্বককে করে কোমল ও ফর্সা । তাই মসুর ডাল বেটে তার সাথে পরিমান মত দুধ মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। তারপর আলত করে মুখে মেসেজ করুন। ২০ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ভাল ভাবে মুখ ধুয়ে ফেলুন।মনে রাখবেন মুখে যেন একটুও লেগে না থাকে। দেখবেন অতি অল্প সময়ে কালো  মুখ ফর্সা হয়ে উঠছে।
  • Makeup face 
  • সর্বোপরি কথা হচ্ছে - নিয়ম মোতাবেক পেস্ট বানিয়ে আপনার ত্বকে লাগান। তাহলে আশা করি এক সপ্তাহের মধ্যে আপনার ত্বক উজ্জল সন্দুর ও ফর্সা হয়ে উঠবে। তবে যাদের এ্যালার্জি আছে তারা ব্যবহার করবেন না । তাতে উপকারের চেয়ে অপকার হবে। এ্যালার্জি আছে কি ভাবে বুঝবো -  সামান্য পরিমান পেস্ট বানিয়ে ত্বকে লাগাবেন তাতে যদি চুলকায় বা ত্বক লাল হয়ে উঠে তখন বুঝবেন আপনার এ্যালার্জি আছে। ব্যবহার করবেন না। আর যদি ত্বক না চুলকায় বা লাল না হয়ে উঠে , ত্বকের সাথে মানানসই হয় তবে ব্যবহার করবেন।আশা করি বুঝতে পেরেছেন। সবাই ভাল থাকুন।

Post a Comment

1 Comments