শিক্ষা ঐক্য প্রগতি


শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড

Email : rahmanmunju@gmail.com

বসন্তে এলো রঙিন ভালবাসা

বসন্তে ভালবাসা :
ফুল ফুটুক আর নাই ফুটুক আজ বসন্ত।১৪ই ফেব্রয়ারী ভালবাসা দিবস।আজ বসন্ত। শীতের হিমেল পরশ শেষে আসে বসন্ত।সাথে সাথে বছর শেষে ঘুরে আসে ভালবাসা দিবস। ভালবাসা শুধুই লোক দেখানো নয়, ভালবাসা আত্মার এক নিবিড় সম্পর্ক।ভালবাসে না এমন লোক পৃথিবীতে কম লোকই আছে।ভালবাসা মনের সব অন্ধকারকে দুর করে আলোর সন্ধান দেয়।ভালবাসা একে অপরকে কাছে টানে।ভালবাসা একে অপকে নিবিড় করে পেতে সাহায্য করে। ভালবাসা একে অপরকে মায়ার বন্ধনে আবদ্ধ করে।তাই মনের অজান্তেই একে অপরের মধ্যে বসন্তে এলো রঙিন ভালবাসা।



Love for Boshonto
Love for Boshonto

সাধারনত: ১৩ই ফেব্রয়ারি পহেলা ফাল্গুন বা বসন্তের প্রথম দিন হয়। পরের দিন ১৪ই ফেব্রয়ারী হয় ‘বিশ্ব ভালবাসা দিবস’। ‍কিন্তু এবার ২০২০ সালে বসন্ত আর বিশ্ব ভালবাসা দিবস একদিনে একসঙ্গে হয়েছে।এই দিনে সবার মন রঙিন হয়ে উঠে। বাহারি সাজে সেজে উঠে প্রকৃতি ও মানুষ।‘ফাগুনের আগুন লেগেছে তোমর হৃদয়ে, বলি হে সখা সেজেছো নতুনের আগমনে।ঝৃতুরাজ বসন্তে প্রকৃতি কন্যা নতুন রুপে’। গাছে গাছে নতুন পাতার আগমন ঘটে। শিমুল, পলাশ আর কৃষ্ণচূড়ার আবাসে চারিদিকে লাল হয়ে যায়। নারীরা বাসন্তী শাড়ীতে নিজেকে নতুন রুপে সাজিয়ে তোলে। পুরুষ সাদা পাঞ্জাবী আর শিশুরা রং-বেরংয়ের পোশাকে সাজে সজ্জিত হয়ে উঠে।

১৪ই ফেব্রয়ারী আজ বসন্তের প্রথম ‍দিন।প্রকৃতিতে ফাগুনের ছোঁয়া। গাছে গাছে নতুন পাতা। কোকিলের কুহু কুহু ডাক জানিয়ে দেয় বসন্ত এসেছে। বসন্ত মনটাকে প্রেমিক বা প্রেমিকা করে তোলে।কি যেন রঙিন ছোঁয়ায় মনটা দুলে উঠে।বসন্ত মনের অনেক গভীরে ভালবাসার বীজ বুনে দেয়। সবুজ সবুজ অবুঝ কচি পাতায় ছুয়ে যায় দারুন ভালবাসা।কোকিলের কুহুতানে মনটা উতালা হয়ে যায়। দূরে কোথাও কোকিলের হাক মনে হাহাকারের জন্ম দেয়।বসন্ত খুব অল্প সময়ের জন্য আসে কিন্তু এই অল্প সময়ে মনের মধ্যে ছড়িয়ে দেয় অপার ভালবাসা।
বসন্ত


ঝৃতুরাজ বসন্ত প্রকৃতিতে ফিরে আসায় যে আনন্দ, তা পালন করা হয় একেক দেশে একেক রকম ভাবে।মজার বিষয় হলো আমরা রঙিন পোশোকে বসন্ত  বরণ করি। পাশের দেশে ভারতে সাদা পোশাকে বসন্ত বরণ করা হয়।কারন এদিন সবাই মেতে ওঠে রং খেলায়। রং ছোড়াছুড়ির মাধ্যমেই একে অন্যকে রাঙিয়ে তোলেন।বুলগেরিয়ায় মার্চের পহেলা তারিখে বসন্ত ফিরে আসার দিনটি পালন করা হয়। এ দিন সে দেশে পরিচিত গ্রান্ডামা মার্চ ডে নামে। লাল ও সাদা সুতায় তৈরি ছোট দুটি পুতুল বানিয়ে পড়ে থাকে প্রায় মাসজুড়ে। বসন্তের প্রথম আভাস পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ফলেন গাছে ঝুলিয়ে দেওয়া হয় শুভ কমনা হিসাবে।হানামি বা চেরি ব্লসম ফেস্টিভ্যাল জাপানের বসন্ত উৎসব।ফুলে ভরে থাকা চেরিগাছের নিচে সবাই জড়ো হয়। সঙ্গে থাকে খাওয়-দাওয় ও পানীয় আর গান।

ভালবাসার জন্য কোন দিবস লাগে না।তবুও আমরা ভালবাসা দিবস হিসেবে ভেলেন্টাইন ডে প্রেম কাহিনী অবলন্বনে ভালবাসা দিবস পালন করে থাকি।ভালবাসা শুধু প্রেমিক-প্রেমিকার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়, ভালবাসা বাবা-মা, ভাই-বোন, আত্মীয় স্বজন সবার মাঝে বিদ্যমান। এটি বিশ্ব জুড়ে এক মায়ার বন্ধন।কেউ ভালবেসে হাসে, কেউ ভালবেসে হাসায়।

ভালবাসা এক বিশ্বাসের নাম। ভালবাসায় একে অপরের মাঝে বিশ্বস থাকতে হবে।তবেই সে ভালবাসা স্থায়ী হবে।বিশ্বাসহীন ভালবাসা টিকে থাকতে পারে না।ভালবাসার পবিত্রতা রক্ষা করুন, হীনমন্যতা দুর করে সত্যিকারের ভালবাসায় নিমগ্ন থাকুন।তাই বসন্তের রঙিন ভালবাসায় ‍নিজেদের রাঙিয়ে তুলুন।ভালবাসায় সবার জীবন ভরে উঠুক এই প্রত্যাশা কামনা করি। 


Post a Comment

0 Comments